বাংলা

চীনা কিশোর-কিশোরীদের ফুটবলের প্রতি আগ্রহ তৈরিতে সামাজিক উদ্যোগ

CMGPublished: 2022-08-01 11:30:15
Share
Share this with Close
Messenger Pinterest LinkedIn

২০১৪ সালের শেষ নাগাদ বেইজিংয়ে ‘আইথিক্য’ নামের একটি ফুটবল ইউথ ক্লাব প্রতিষ্ঠিত হয়। এর কয়েক মাস পর চীনে ফুটবল খেলার উন্নয়নে সংস্কার প্রস্তাব গৃহীত হয়। টানা কয়েক বছরের উন্নয়ন-কার্যক্রমের ফলে বেইজিংয়ে ক্লাবের ৩০টিরও বেশি শাখা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং এখানে প্রশিক্ষিত কিশোর-কিশোরীর সংখ্যা ৭০০০ ছাড়িয়েছে। আর ক্লাবের কোচের সংখ্যাও ৩০০ শতাধিক।

আইথিক্যের প্রতিষ্ঠাতা লি চাও এ ক্লাব গঠন করার গল্প স্মরণ করে বলেন, গত শতাব্দীর ৮০-র দশকে তিনি বেইজিংয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তখন বেইজিংয়ে পেশাদার ফুটবল দল মাত্র গঠিত হয়েছে। ছোটবেলায় বেইজিং কুওআন নামের ফুটবল দল লি চাওয়ের জন্য বেশ আগ্রহের ব্যাপার ছিল। তিনিও ফুটবল খেলতে শেখেন, পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে অবসর হওয়ার পর কোচ হিসেবে বাচ্চাদের জন্য প্রশিক্ষণ ক্লাস শুরু করেন। তখন বার্ষিক খরচ ৪০০ ইউয়ানের মতো ছিল। তবে ধীরে ধীরে ফুটবল প্রশিক্ষণ ক্লাসে অংশগ্রহণের জন্য ব্যয় বাড়তে থাকে। প্রতি সেমিস্টার ৩০০০ থেকে ৪০০০ ইউয়ানের মতো এখন। তখন এ টাকা অনেক পরিবারের জন্য অনেক বেশি ছিল। তিনি একসময় বেইজিংয়ের একটি উচ্চবিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং লেখাপড়ার সাথে সাথে ফুটবল খেলা চলতে থাকে।

উচ্চবিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষে চীনের জাতীয় যুব ফুটবল দলের খেলোয়াড়দের বাছাই পরীক্ষায় অংশ নেন লি চাও। তবে শেষ পর্যন্ত ২০ জনের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে ব্যর্থ হন। তখন তিনি খেয়াল করেন যে, পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে কাজ করা সহজ নয়; পেশাদার প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়াও কঠিন ব্যাপার। পরে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার সিদ্ধান্ত নেন এবং খেলোয়াড়-শিক্ষার্থী হিসেবে পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। স্নাতক হওয়ার পর বেইজিংয়ের একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে যোগ দেন লি।

২০১৩ সালে পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএ করেন তিনি। তাঁর সহপাঠীদের মধ্যে অনেকে নিজ নিজ কোম্পানি চালু করে। তখন তাঁর বাচ্চাও জন্মগ্রহণ করেছে। সেই সময় তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে, বাচ্চাদের ফুটবল খেলা শেখাবেন; ফুটবলের প্রতি তাঁর আগ্রহ তিনি বাচ্চাদের মধ্যে ছড়িয়ে দেবেন।

1234...全文 5 下一页

Share this story on

Messenger Pinterest LinkedIn