স্বপ্নীল ১০ দিন

- জন অংশগ্রহণ করেছেন।
r_1172400_2018010815583180842200.jpg r_1172400_2018010815584024446300.jpg r_1172400_2018010815584828690200.jpg
r_1172400_2018010815585792958800.jpg r_1172400_2018010815590781521100.jpg r_1172400_201801081559337024100.jpg
r_1172400_2018010815594744223800.jpg r_1172400_2018010816004126337300.jpg r_1172400_2018010816005176094400.jpg

শুরুটা হয়েছিল  ১৯ মে হযরত শাহাজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে। বাংলাদেশ থেকে ৪৫ জন ছাত্রের একটি দল চীনের বেইজিং এ শিক্ষা বিনিময় কর্মসূচী-২০১৭ এ অংশগ্রহণের জন্য যাত্রা করি। পরবর্তীতে চীন থেকে ফিরে এসেছিলাম ৪৫ জনের একটা অবিচ্ছেদ্য পরিবার হয়ে।

প্রথম বার প্লেনে উঠা আর দেশের বাইরের মাটিতে পা রাখার কথা ভাবতেই মনে অন্যরকম এক অনুভুতি হচ্ছিল। প্লেনে যখন নিজের আসন আবিস্কার করলাম একজন চীনা মানুষের পাশে তখন প্রথমে একটু নার্ভাস লাগছিল। চীনা ছেলেটি বয়সে আমার চেয়ে একটু বড় হলেও দুই জনের একটি জিনিস মিল ছিল। আমাদের দুজন এর চোখেই চশমা! আমি চিন্তা করছিলাম কিভাবে কথা শুরু করা যায়। প্রথম দিকে দুজনই একটু সংকোচ করলেও তারপর শুরু হল চীন ও চীনের মানুষের প্রতি আমার অভিভূতর গল্প।

চীনা মানুষের সাথে গল্পে গল্পেই আমি উড়ে চলি চীনের দিকে। মজার ব্যাপার হল ওর আর আমার নাম এর প্রথম অক্ষর ও একই! ওর নাম “ফাং”। তো ফাং বলল তুমি যেহেতু চীন যাচ্ছ, তোমাকে কিছু চীনা ভাষা শিখিয়ে দিই। আমি উৎসাহের সাথে শিখতে লাগলাম। নিহাও- হ্যাঁলো, শিয়া-শিয়া-ধন্যবাদসহ আরও অনেক চীনা শব্দের সাথে আমার প্রথম পরিচয় মেঘের ভেতর দিয়ে এগিয়ে চলা প্লেনেই।

মাঝখানে কুনমিং বিমানবন্দরে যাত্রা বিরতির পর আবার উড়ে চলি বেইজিং-এর দিকে। খুব ভোরে মেঘমুক্ত আকাশে প্লেনের জানালা দিয়ে বেইজিং শহর এর মনকাড়া দৃশ্য দেখে অন্যরকম অনুভুতি জেগে উঠে। বেইজিং বিমানবন্দরে আমাদের হাসিমুখে অভ্যর্থনা জনায় দুটি মুখ। ডেভিড ও সারাহ (ওদের ইংলিশ নাম)। যারা পুরো ১০ দিনজুড়ে আমাদের স্বপ্নের নগরী বেইজিংকে রঙিন করে তুলেছিল আমাদের সাথে থেকে।

২০ মে সকাল থেকে শুরু আমাদের ভ্রমণ। বেইজিংয়ের পথে প্রথম পা রেখে ও চারিপাশ দেখে আমার মনে হতে লাগল বইয়ের পাতায় পড়া শহরটি যেন আমার সামনে জীবন্ত হয়ে উঠেছে।



খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ