প্রিয় চীন

- জন অংশগ্রহণ করেছেন।

প্রতিদিন চীনের আকাশ পাড়ি দিয়ে সূর্যি মামা বাংলাদেশে আসে। আসতে আসতে তার দু ঘন্টা দেরি, খুনমিং থেকে ঢাকার বিমান দূরত্বও ঠিক দু ঘন্টারই। আমরা একই আকাশ পাড়ি দেওয়া সূর্যের আলো পাই, একই প্রবাহের জলে অবগাহন করি। চীন থেকে আসা ব্রহ্মপুত্রের পানি আর পলি বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলকে করেছে ঈর্ষণীয় উৎপাদনশীল ভূখন্ড।
বাবার হাত ধরে ফেরি পাড়ি দিয়ে এখন আমার হোমটাউন ময়মনসিংহে আসতে হয় না, দ্বিতীয় বাংলাদেশ চীন মৈত্রী সেতু আমার দুর্ভোগ কমিয়েছে। বাঙালির স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সস্তায় কলম থেকে কম্পিউটার পর্যন্ত যাবতীয় প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছে চীন। স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণে চীনা প্রকৌশলীরা বাংলাদেশের পক্ষে চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন।

 ২০১৪ সালে সিআরআই বাংলা বিভাগে

২০১৪ সালে সিআরআই বাংলা বিভাগে

আমরা ষোল কোটি মানুষ কায়মনোবাক্যে চীনাদের বিজয় প্রত্যাশা করি কারণ তাঁদের চ্যালেঞ্জ জেতার সাথে জড়িয়ে আছে আমাদের স্বপ্ন, নতুন প্রজন্মের স্বপ্নোজ্জ্বল ভবিষ্যত। 

ছিনহুয়াংতাও শহরে ইয়ানশান বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্ধুদের সাথে

ছিনহুয়াংতাও শহরে ইয়ানশান বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্ধুদের সাথে

চীনের সাথে প্রথম পরিচয় ইথারে ভেসে আসা সিআরআই বাংলা বিভাগের চীনা বন্ধুদের কন্ঠস্বরের মৈত্রীতায়, যে মৈত্রী সিআরআই আরো গভীর করেছিল ২০০৮ সালে আমাকে চীন ভ্রমণের আমন্ত্রণ জানানোর মাধ্যমে। অনন্য এই আন্তরিক আহ্বান আমার হৃদয়ে চীনকে বসিয়েছে এমন হৃদ্যতায় যেখানে যায়গাটা শুধু চীনেরই। আমি হৃদয় দিয়ে চীনকে উপলব্ধি করি, চীন, চীনা সংস্কৃতি এবং চীনাদের আমি ভালোবাসি প্রতিটি নিঃশ্বাসে।


খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ