বাংলা

রাসেলস ভাইপারের স্বভাব কেমন, কীভাবে সতর্ক থাকবেন জানাল মন্ত্রণালয়

CMGPublished: 2024-06-23 22:15:36
Share
Share this with Close
Messenger Pinterest LinkedIn

সিএমজি বাংলা ডেস্ক: বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে বিষধর রাসেলস ভাইপার। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রাসেলস ভাইপার (চন্দ্রবোড়া, বোড়া বা উলুবোড়া) নিয়ে জনসাধারণের মধ্যে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। এ বিষয়ে সাবধানতা ও সচেতনতার জন্য বিবৃতি দিয়েছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

বিবৃতিতে মন্ত্রণালয় বলেছে, রাসেলস ভাইপারের উপস্থিতি উদ্বেগজনক হলেও এটি মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে, মানুষের সঙ্গে এ সাপের মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা কম। এ সাপ সাধারণত নিচুভূমির ঘাসবন, ঝোপজঙ্গল, উন্মুক্ত বন, কৃষি এলাকায় বাস করে এবং মানুষের বসতি এড়িয়ে চলে। সাপটি মেটে রঙের হওয়ায় মাটির সঙ্গে সহজে মিশে যেতে পারে। মানুষ খেয়াল না করে সাপের খুব কাছে গেলে সাপটি বিপদ দেখে ভয়ে আক্রমণ করে। রাসেলস ভাইপার দক্ষ সাঁতারু হওয়ায় নদীর স্রোতে ও বন্যার পানিতে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিস্তৃত হয়েছে। এ জন্য সবাইকে সাবধানতা অবলম্বন করার জন্য বিবৃতিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

কামড় এড়াতে করণীয়

# যেসব এলাকায় রাসেলস ভাইপার দেখা গেছে, সেসব এলাকায় চলাচলে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করুন।

# লম্বা ঘাস, ঝোপঝাড়, কৃষি এলাকায় হাঁটার সময় সতর্ক থাকুন। গর্তের মধ্যে হাত-পা ঢোকাবেন না।

# সংশ্লিষ্ট এলাকায় কাজ করার সময় বুট ও লম্বা প্যান্ট পরুন।

# রাতে চলাচলের সময় অবশ্যই টর্চলাইট ব্যবহার করুন।

# বাড়ির চারপাশ পরিষ্কার ও আবর্জনামুক্ত রাখুন।

# পতিত গাছ, জ্বালানির লাকড়ি ও খড় সরানোর সময় বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করুন।

# সাপ দেখলে তা ধরা বা মারার চেষ্টা করবেন না।

# প্রয়োজনে জাতীয় হেল্পলাইন ৩৩৩ নম্বরে কল করুন অথবা নিকটস্থ বন বিভাগের অফিসকে অবহিত করুন।

সাপের কামড়ের পর যা করণীয়

# দংশিত অঙ্গ নড়াচড়া করা যাবে না। পায়ে কামড়ালে বসে পড়তে হবে, হাঁটা যাবে না। হাতে কামড়ালে হাত নাড়াচাড়া করা যাবে না। হাত পায়ের গিড়া নাড়াচাড়ায় মাংসপেশীর সংকোচনের ফলে বিষ দ্রুত রক্তের মাধ্যমে শরীরে ছড়িয়ে গিয়ে বিষক্রিয়া করতে পারে।

12全文 2 下一页

Share this story on

Messenger Pinterest LinkedIn