বর্তমান স্থান: মূল পাতা > জীবন > প্রধান লেখা

বয়স যখন ৫০: সুস্থ, সুন্দর, ও দীর্ঘ জীবনের জন্য যা করবেন এবং যা করবেন না

2018-04-15 19:01:42

 আজ আমরা তাঁদের নিয়ে আলোচনা করব, যাদের বয়স ৫০ বা তারচেয়ে বেশি। তার মানে কি এই যে, ৫০-এর কম বয়সীরা আমাদের এ-অনুষ্ঠান থেকে উপকৃত হবেন না? না, মোটেই তা নয়। যাদের বয়স ৫০-এর কম, তাঁরাও একসময় ৫০ অতিক্রম করবেন। তাই, আমাদের আলোচনা তাদের জন্যও প্রযোজ্য।

আমরা প্রায় সবাই দীর্ঘ ও সুস্থ জীবন চাই। ৫০-এর পর নাকি এই চাওয়া আরও বেড়ে যায়। কথাটা সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য না-ও হতে পারে। তবে, এ-কথা তো না-মেনে উপায় নেই যে, স্বাভাবিকভাবে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শারীরিক ও মানসিক সমস্যাও বাড়তে থাকে আমাদের। তো, এ-সব সমস্যা থেকে যতদূর সম্ভব দূরে থেকে, সুন্দর বাকি জীবন কাটানোর চেষ্টা আমাদের সবারই করা উচিত, কী বলেন? তো, চলুন আজকের মূল আলোচনায় যাই।

বয়স যাদের ৫০, তাদের জীবনাচার কেমন হওয়া উচিত? তাঁরা কী করবেন এবং কী করবেন না? আমরা বিশেষজ্ঞদের কয়েকটি পরামর্শ নিয়ে আজ আলোচনা করব। আশা করি, আপনারা উপকৃত হবেন।


পরামর্শ ১. নিজেকে সবসময় তরুণ ভাবুন

কথায় বলে, মানুষের বয়স বাড়ে মনে, শরীরে নয়। ইংরেজিতে আরেকটি কথা প্রচলিত আছে: লাইফ বিগিনস্‌ অ্যাট ফরটি (জীবন ৪০ থেকে শুরু হয়)। ৫০-এর পর সুস্থ, সুন্দর ও দীর্ঘ জীবনের জন্য আমাদেরকে মানসিকভাবে তরুণ থাকতে হবে। মনের নাকি কোনো বয়স হয় না। অনেকেই বলেন, আমি সেই পঁচিশেই আটকে আছি। তাদের জন্য সুখবর। নিজেকে তরুণ ভাবতে পারাটা একটা ভালো গুণ। যুক্তরাষ্ট্রে একটি জরিপ হয়েছিল। জরিপে অংশগ্রহণ করেন ৭০-এর বেশি বয়সী লোকজন। তাদের দীর্ঘ ও সুন্দর জীবনের রহস্য ভেদ করতে গিয়ে জানা গেল যে, তাঁরা সবসময় নিজেদেরকে বাস্তবের তুলনায় কম বয়সী ভাবতে পছন্দ করেন। মোদ্দাকথা, নিজেকে বৃদ্ধ ভাবা চলবে না। শরীরকে হয়তো তরুণের মতো চালাতে পারবেন না; কিন্তু মনকে তাজা রাখা সম্ভব।  


পরামর্শ ২. পেটে চর্বি জমতে দেবেন না

খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ