বর্তমান স্থান: মূল পাতা > সংস্কৃতি > প্রধান লেখা

বেইজিংয়ে পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে চলচ্চিত্র নিয়ে ইরানি পরিচালক মাজিদ মাজিদির আলোচনা

2018-11-22 09:39:07

বেইজিংয়ে পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে চলচ্চিত্র নিয়ে ইরানি পরিচালক মাজিদ মাজিদির আলোচনা

বেইজিংয়ে পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে চলচ্চিত্র নিয়ে ইরানি পরিচালক মাজিদ মাজিদির আলোচনা

ইরানের বিখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক মাজিদ মাজিদি ৫ নভেম্বর আমন্ত্রিত হয়ে চীনের পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে চলচ্চিত্র-শিল্প নিয়ে আলোচনা করেন। বেইজিংয়ের বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের দশাধিক শিক্ষার্থী ও শিক্ষক এ আলোচনাসভায় অংশ নেন। দর্শকদের সঙ্গে বিনিময়ের সময় মাজিদি বলেন, চীনা সংস্কৃতির ভিত্তি সুগভীর, ব্যাপক ও বিস্তৃত। তিনি চীনসংক্রান্ত একটি চলচ্চিত্র নির্মাণের আশা প্রকাশ করেন।

বিশ্বের চলচ্চিত্রাঙ্গনে ইরানের চলচ্চিত্র জাদুর মতো। দেশটিতে আব্বাস কিয়ারুস্তামি, মাজিদ মাজিদি ও আসঘার ফারহাদিসহ আন্তর্জাতিক প্রভাবসম্পন্ন চলচ্চিত্র ব্যক্তি আছেন। মাজিদির বেশ কয়েকটি শিল্পকর্ম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উত্সবে পুরস্কার লাভ করে।

মাজিদির প্রতিনিধিত্বকারী শিল্পকর্ম ‘দ্য চিলড্রেন অফ হ্যাভেন' হলো অস্কারে শ্রেষ্ঠ বিদেশি চলচ্চিত্রের মনোনয়ন পাওয়া ইরানের প্রথম চলচ্চিত্র। চীনে প্রদর্শনের পর চলচ্চিত্রটি অসংখ্য চীনা দর্শককে মুগ্ধ করে।

আলোচনাসভায় মাজিদি ২০০৮ সালে আমন্ত্রিত হয়ে ‘আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র পরিচালকের বেইজিং শুটিং' নামে বেইজিং নগর প্রচারণাসংক্রান্ত ছোট ভিডিও শুটিংয়ের সেই অভিজ্ঞতার স্মৃতিচারণ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি তখন দু'মাস শুটিং করেছি। কয়েকবার বেইজিংয়ে যাতায়াত করেছি। আমি বেইজিং নগরের ভাবমূর্তি জানার চেষ্টা করি। আমি মনে করি, ৫ মিনিটের ছোট এক ভিডিওয়ের মাধ্যমে কয়েক হাজার ইতিহাসসম্পন্ন বেইজিং নগর তুলে ধরা আমার কাছে খুব কঠিন। তবে আমার জন্য এটি খুব মূল্যবান একটি সুযোগ। ফলে আমি কাছাকাছি চীনের ইতিহাস ও সংস্কৃতি জানার চেষ্টা করি। সুপ্রাচীনকালে রেশমপথের মাধ্যমে ইরান ও চীনের মধ্যে যোগাযোগ শুরু হয়। ইতিহাসে প্রমাণিত যে, সুগভীর সংস্কৃতিসম্পন্ন দেশগুলো অনেক ক্ষেত্রেই সফল হয়। চীনের বিস্তৃত ও সুগভীর সংস্কৃতি এবং চীনা জনগণের পরিশ্রমী চরিত্র সারা বিশ্বে প্রশংসনীয়।'

খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ