বর্তমান স্থান: মূল পাতা > সংস্কৃতি > প্রধান লেখা

স্বপ্নের পিছনে ছুটে চলা চীনের অভিনেতা তুয়েন ই হোং

2018-11-15 19:54:16

স্বপ্নের পিছনে ছুটে চলা চীনের অভিনেতা তুয়েন ই হোং

স্বপ্নের পিছনে ছুটে চলা চীনের অভিনেতা তুয়েন ই হোং

‘শক্তি সঞ্চয় এবং শক্তি প্রদান একজন অভিনেতার জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ। ধৈর্য নিয়ে সময়ের মধ্যে অপেক্ষা করা খুব প্রয়োজন।' এটা হলো অভিনেতা তুয়েন ই হোংয়ের কথা।

১৯৯৪ সালে চীনের সিনচিয়াং উইগুর স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের ছোট শহর ই নিংয়ে তুয়েন ই হোং চীনের কেন্দ্রীয় ড্রামা একাডেমিতে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি পান। এ খবরে পরিবারের সবাই আনন্দিত হয়ে ওঠেন। তবে তিনি খুব শান্ত থাকেন। এর আগের তিন বছর সময় তাঁর জীবন যেন শক্ত মোমের মতো। এ খবর শুনে তিনি কিছুক্ষণের জন্য তার চিত্তে বিনোদন পান।

সেই সময় স্কুলে তার অভিনীত এক নাটক শাংহাইয়ের একজন শিক্ষকের প্রশংসা পায়। অভিনয় নিয়ে লেখাপড়া করতে ওই শিক্ষক তাকে উত্সাহিত করেন। তখন থেকে বিদ্রোহী দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করে মনোযোগ দিয়ে পড়াশোনা শুরু করেন তিনি। পরিবারের বিরোধিতা উপেক্ষা করে তিনি বেইজিংয়ে যাওয়ার ট্রেনে ওঠেন। এটি হলো তার প্রথমবারের মতো জন্মস্থান থেকে বেরিয়ে যাওয়া। ১৯৯১ সালে তিনি দীর্ঘ ট্রেন ভ্রমণ শেষে বেইজিংয়ে পৌঁছান। তবে দুঃখের বিষয় হলো জীবন চলচ্চিত্রের অনুপ্রেরণামূলক গল্পের মতো নয়। দৃঢ় প্রতিজ্ঞা এবং সাহসের মাঝেও সবকিছু সুষ্ঠুভাবে পাওয়া যায় না। প্রথম পরীক্ষায় তিনি ব্যর্থ হন।

তিনি এক দরিদ্র পরিবারে পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন, তাই স্বপ্ন যেন তার কাছে কেবল স্বপ্নই। তবে তুয়েন ই হোং নিজের স্বপ্নে অবিচল থাকেন। গ্রীষ্মকালীন ছুটিতে তিনি অভিনয় চর্চার পাশাপাশি ফল সংরক্ষণ কারখানায় পার্ট টাইম কাজ করেন। তিনি উপার্জিত সব টাকা মাকে পাঠান। দ্বিতীয় বছর তিনি আরেকবার চীনের কেন্দ্রীয় ড্রামা একাডেমির দরজায় প্রবেশ করেন। তবে আবারো ব্যর্থ হন। তৃতীয় বছর তিনি আবার পরীক্ষা দিতে চান। এবার তিনি নিজেকে বলেন, এবার তার শেষ পরীক্ষা।

খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ