বর্তমান স্থান: মূল পাতা > সংস্কৃতি > প্রধান লেখা

২০১৭ সালের চীনা চলচ্চিত্র বা টেলিভিশন নাটকের বাজার

2017-12-25 15:28:21

২০১৭ সালের চীনা চলচ্চিত্র বা টেলিভিশন নাটকের বাজার

আগে অল্প ও মাঝারি খরচে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলো বড় বাজারে টিকে থাকতে পারতো না। তবে চলতি বছর এমন ধরনের চলচ্চিত্র বাজারে নিজের ক্ষুদ্র অবস্থা দখল করে নিয়ে টিকে থেকেছে। আমি মনে করি, এটা হলো চলচ্চিত্রের বিশাল এক শক্তি। দর্শকেরা এসব চলচ্চিত্রকে পছন্দ করেছে এবং এর ফলে অর্জন করেছে ভালো ব্ক্স অফিস।

২০১৭ সালে চীনে বাস্তবতার ওপর নির্ভরশীল চলচ্চিত্রের উপাদান আবার ফিরে এসেছে। চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন শিল্পের উন্নতি হতে চাইলে এর কেন্দ্রীয় বিষয়কে হতে হবে বাস্তবতানির্ভর।

চলতি বছরের প্রথমার্ধে চীনে ‘ইন দ্য নেম অব পিপল' নামে একটি টিভি নাটক বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করে। সেই সঙ্গে বছরের শেষ দিকে ‘দ্য লাভ অব কার্টইয়ার্ড' নামে আরেকটি টিভি নাটকও খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। এগুলোতে কোনো মহান তারকা ছিলো না। এ থেকে বোঝা যায়, চলচ্চিত্র বা টিভি নাটকের প্রধান বিষয় বা ভালো গল্প হলো দর্শকদের সবচেয়ে পছন্দের বিষয়।

এখন প্রশ্ন হলো- সত্যিকার ভালো বিষয় মানে কি? হ্যাঁ, এর মানে হলো ভালোভাবে মনোযোগ দিয়ে মুগ্ধকর একটি গল্প তুলে ধরা।

আসলে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চীনা চলচ্চিত্র বা টেলিভিশনের ক্ষেত্রে কিছু পরিচালনার নীতিমালাও প্রণয়ন করা হয়। যেমন, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের বেতন সীমিত করা, ইন্টারনেটে নকল ক্লিক হারের ওপর শাস্তি দেওয়া, গ্রাম ও গ্রামীণ জীবনসংক্রান্ত বিষয় এবং শিশুবিষয়ক বিষয়ে সমর্থনের নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়। এসব নীতির কার্যকরিতা হয়তো স্বল্পসময়ের মধ্যে দেখা যাবে না। তবে নীতি থাকলে উন্নয়নের পথও সঠিক হবে বলে আশা করা যায়।

চলতি বছর দু'টি তথ্যচিত্রের কথা উল্লেখযোগ্য। একটি হলো ‘কাংরিনবোকে' নামে চাং ইয়াংয়ের পরিচালিত একটি তথ্যচিত্র এবং আরেকটি হলো ‘টোয়েন্টি টু' নামে বিখ্যাত অভিনেত্রী চাং শিন ই'র পুঁজি বিনিয়োগে পরিচালক কুও খ্যয়ের পরিচালিত তথ্যচিত্র। কম খরচে নির্মিত এ দু'টি চলচ্চিত্ররচনার দৃষ্টিভঙ্গি খুব গুরুগম্ভীর। বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। তবে সিনেমা হলে প্রদর্শনের পর এ দুটি চলচ্চিত্রের বক্সঅফিস ১০ কোটি ইউয়ান ছাড়িয়ে যায়।

খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ