বর্তমান স্থান: মূল পাতা > সংস্কৃতি > প্রধান লেখা

গাজার সিনেমা হলগুলোর যে অবস্থা এখন

2017-11-16 14:41:42

বিশ্বের অধিকাংশ জায়গায় নিয়মিত চলচ্চিত্র উপভোগ করা খুব সাধারণ একটি ব্যাপার। তবে ইসরাইলের অবরোধের কারণে হামাস নিয়ন্ত্রিত গাজা অঞ্চলের অধিবাসীদের কাছে তা অসম্ভব। তাদের বেশিরভাগই ৩০ বছর আগে সিনেমা হলে গিয়ে চলচ্চিত্রে দেখেছেন।

গত ৩০ বছরে গাজায় কোনো সিনেমা হল নির্মিত হয় নি। ‘সিনেমা হল' এই শব্দ তরুণ প্রজন্মের কাছে খুব অপরিচিত এক শব্দ। বিশ্বের অধিকাংশ দর্শকের মতো গাজার অধিবাসীরাও স্বপ্ন দেখেন তারা একদিন আধুনিক সিনেমা হলে পপকর্ন খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চলচ্চিত্র উপভোগ করবেন।

অগাস্ট মাসে গাজায় বড় একটি খবর বের হয়। স্থানীয় বা আন্তর্জাতিক মিডিয়া তা নিয়ে ব্যাপক প্রতিবেদন তৈরি করে। প্রতিবেদনে বলা হয়, দীর্ঘকাল বন্ধ থাকার পর গাজার সিনেমা হল আবার চালু হয়েছে। গাজাবাসীদের সিনেমা হলে চলচ্চিত্র উপভোগ করার সুযোগ এসেছে।

এই সিনেমা হল হলো গাজার প্রাচীনতম সামির সিনেমা হল। গত শতাব্দীর ৪০'র দশকে এটি নির্মিত হয়। ৮০'র দশকে এ সিনেমা হল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়।

বিগত ৩০ বছর ধরে সিনেমা হলটির এই কালো দেয়াল গাজার কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে আছে। কেউ এটিকে খেয়াল করেন না। মাঝেমাঝে যখন মা-বাবা তাদের সন্তানদের নিয়ে এর ভেতর দিয়ে যান তখন তারা দেয়ালের দিকে তাকিয়ে সন্তানকে জানান, দেখো, এটি হলো সামির সিনেমা হল। ঠিক সেই সময় শিশুরা জিজ্ঞাস করে, সিনেমা হল কি?

২০১৭ সালের ২৮ অগাস্ট প্রায় ভুলে যাওয়া এই ভবনে হঠাত্ সাড়া পড়ে যায়। অনেক লোক এখানে এসে ভবনের দরজার সামনে এবং ভেতরে ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করা শুরু করে। তারা ভেতরে বিশাল সাদা কাপড় এবং সারি সারি চেয়ার স্থাপন করে, যেন জাঁকজমকপূর্ণ কোনো সম্মেলন আয়োজনের মতো।

আসলে এটি হলো গাজার একটি বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে সিনেমা হলটি আবার খুলে দেওয়ার কার্যক্রম। এ কার্যক্রমের প্রধান বিষয় ছিলো বহু বছর ধরে বিধ্বস্ত প্রাচীন সিনেমা হলে গাজার চলচ্চিত্র পরিচালকের নতুন করে নির্মিত চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা। চলচ্চিত্রে ইসরাইলের হাতে বন্দী হওয়া ফিলিস্তিনির গল্প তুলে ধরা হয়। বিভিন্ন বয়সের প্রায় তিন শ' দর্শক আকৃষ্ট হয়ে সিনেমা হলে আসেন। যদিও সিনেমা হল অনেক পুরোনো, সেখানে কোনো এয়ার কন্ডিশন বা ফ্যান নেই, তবে তারা এই গরম আবহাওয়াতেই আড়াই ঘন্টার এই চলচ্চিত্র উপভোগ করেন।

খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ