বর্তমান স্থান: মূল পাতা > সংস্কৃতি > প্রধান লেখা

চীনের ইতিহাস ও সংস্কৃতি-সম্পর্কিত তথ্যচিত্র ‘দ্য স্টোরি অব চায়না’

2017-03-08 11:04:15

চীনের ইতিহাস ও সংস্কৃতি-সম্পর্কিত তথ্যচিত্র ‘দ্য স্টোরি অব চায়না’

চীনের ইতিহাস ও সংস্কৃতি-সম্পর্কিত তথ্যচিত্র ‘দ্য স্টোরি অব চায়না' তথ্যচিত্রটি ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন (বিবিসি) এবং যুক্তরাষ্ট্রের পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিস (পিবিএস)-র যৌথ উদ্যোগে নির্মিত হয়। বিখ্যাত ব্রিটিশ ইতিহাস-রচয়িতা এবং টিভি অনুষ্ঠান উপস্থাপক মিশেল উড এ তথ্যচিত্রটি রচনা করেন এবং উপস্থাপকের দায়িত্ব পালন করেন। এ তথ্যচিত্রে মোট ৬টি পর্ব আছে। তথ্যচিত্রটি নির্মাণের মূল উদ্দেশ্য হলো পশ্চিমা দর্শকদেরকে চীন সম্পর্কে জানানো।

‘দ্য স্টোরি অব চায়না' তথ্যচিত্রের নির্মাণ কাজ শুরুর আগে উড ৫০ পৃষ্ঠার একটি রিপোর্ট লিখেন। এতে এ তথ্যচিত্র নির্মাণের ধারণা এবং নির্মাণের পদ্ধতি বর্ণনা করা হয়। প্রযোজক উডের এই রিপোর্ট মার্কিন পক্ষকে দেখান এবং তারাও খুব আগ্রহ প্রকাশ করেন। উড বলেন, চীনের সঙ্গে তার সুগভীর সম্পর্ক গত শতাব্দীর ৮০ দশক থেকে শুরু হয়। তখন সবেমাত্র বিশ্বের কাছে চীনের দরজা খোলা শুরু হয়েছে। চীন সম্পর্কে তখনও বিদেশিরা তেমন কিছুই জানেন না।

তিনি বলেন, চীনের ইতিহাস সম্পর্কে পশ্চিমা দেশগুলোর জানাশোনা আসলেই তেমন সঠিক নয়। সবচেয়ে মজার বিষয় হলো, পশ্চিমা দেশগুলো বিভিন্ন যুগের মধ্য দিয়ে চীনের ইতিহাস দেখতে পছন্দ করে। যেমন, ক্লাসিক্যাল পর্যায়, মধ্যযুগ এবং নবজাগরণসহ পশ্চিমা ইতিহাসসম্পর্কিত নানা ধরনের শব্দ ব্যবহার করা হয়। যেমন- চীনের থাং রাজবংশ, আমরা কি বলতে পারি, সেই সময় হলো চীনের মধ্যযুগ? অবশ্যই বলতে পারি না। থাং রাজবংশ চীনা ইতিহাসের উচ্চ পর্যায়ের সভ্যতাসম্পন্ন একটি সময়।

উড বলেন, তথ্যচিত্রের দ্বিতীয় পর্বে থাং রাজবংশের বিশ্বের সঙ্গে চীনের সাংস্কৃতিক বিনিময় চালানোর ইচ্ছা নিয়েও আলোচনা করা হয়। চীনের সোং রাজবংশকে একটি উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ইউরোপের কথা দিয়ে এভাবে বর্ণনা করা হয়, সোং রাজবংশে যেন মহান রেনেসাঁ ঘটার মতো। তবে পশ্চিমা রেনেসাঁর তুলনায় সোং রাজবংশের সব ঘটনা কয়েক শ' বছর আগে ঘটে। সোং রাজবংশে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়ন যেন শিল্প বিপ্লব ঘটার মতো।

খবর :
সর্বশেষ খবর চীন বিশ্ব দক্ষিণ এশিয়া

চীনা ভাষা শিখুন সংস্কৃতি জীবন বাণিজ্য চীনের বিশ্বকোষ